• ৪ঠা ডিসেম্বর, ২০২১ ইং , ১৯শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ , ২৯শে রবিউস-সানি, ১৪৪৩ হিজরী

চুয়াডাঙ্গায় সাত বছর পর আবারও বিএনপির আহবায়ক কমিটি

ভয়েস অফ বাংলাদেশ
প্রকাশিত নভেম্বর ৪, ২০২১
চুয়াডাঙ্গায় সাত বছর পর আবারও বিএনপির আহবায়ক কমিটি

নিউজ ডেস্কঃ 

মাহমুদ হাসান খান ওরফে বাবুকে আহবায়ক ও মো. শরীফুজ্জামান ওরফে শরীফকে সদস্যসচিব করে চুয়াডাঙ্গা জেলা বিএনপির (আংশিক) কমিটি গঠন করা হয়েছে। বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বুধবার (৩ নভেম্বর) এই কমিটির অনুমোদন দেন। কেন্দ্রীয় বিএনপির সহদপ্তর সম্পাদক মুহম্মদ মুনির হোসেন স্বাক্ষরিত এক বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানা গেছে। নতুন এই কমিটি গঠনের মধ্য দিয়ে দীর্ঘ সাত বছর বয়সী আহবায়ক কমিটির নেতৃত্বের অবসান ঘটল।

 

 

মাহমুদ হাসান খান এর আগে জেলা বিএনপির ভারপ্রাপ্ত আহবায়ক এবং শরীফুজ্জামান ওই কমিটির সদস্য ছিলেন। যারা দলীয় মনোনয়ন নিয়ে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে চুয়াডাঙ্গার দুটি আসনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেছিলেন।

মো. শরীফুজ্জামান  বলেন, নতুন কমিটিতে আর কোনো যুগ্ম আহবায়ক থাকবেন না। শিগগিরই কেন্দ্র থেকে ৩১ সদস্যের একটি আহবায়ক কমিটি গঠন করে জানাবে। কেন্দ্রীয় কমিটির নির্দেশনা অনুযায়ী ওই কমিটি অধীনস্থ সব ইউনিটসহ জেলা বিএনপির কমিটি গঠন করবে। এ বিষয়ে জানতে মাহমুদ হাসান খানের মুঠোফোনে যোগাযোগ করলে সেটি বন্ধ পাওয়া যায়।

দলীয় সূত্রে জানা গেছে, ২০১৪ সালের ২৭ এপ্রিল অহিদুল ইসলাম বিশ্বাসকে আহবায়ক এবং মাহমুদ হাসান খানকে ১ নম্বর যুগ্ম আহবায়ক করে চুয়াডাঙ্গা জেলা বিএনপির ৫১ সদস্যের আহবায়ক কমিটি অনুমোদন করে কেন্দ্রীয় বিএনপি। মো. শরীফুজ্জামান এই কমিটির সদস্য ছিলেন। এ আহবায়ক কমিটিকে পরবর্তী ৯০ দিনের মধ্যে অধীনস্থ সব ইউনিট গঠন ও পূর্ণাঙ্গ জেলা কমিটি গঠনের জন্য কেন্দ্র থেকে নির্দেশনা থাকলেও অন্তঃকলহের কারণে তা সম্ভব হয়নি।

পরবর্তী সময়ে নানা অভিযোগে জেলা বিএনপির আহবায়ক অহিদুল ইসলাম বিশ্বাসকে ২০১৯ সালের ৩ এপ্রিল দলীয় সদস্যসহ সব পদ থেকে অব্যাহতি দেয় কেন্দ্রীয় বিএনপি। মাহমুদ হাসান খানকে ভারপ্রাপ্ত আহবায়ক হিসেবে দায়িত্ব দেওয়া হয়। তিনিও পূর্ণাঙ্গ কমিটি গঠন করতে পারেননি।

নতুন অনুমোদিত কমিটির আহবায়ক মাহমুদ হাসান খান বাবু একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে চুয়াডাঙ্গা-২ আসনে বিএনপি মনোনীত ধানের শীষের প্রার্থী ছিলেন। সদস্য সচিব মো. শরীফুজ্জামানও চুয়াডাঙ্গা-১ আসনে ধানের শীষের প্রার্থী ছিলেন।