এই শহরের মিথ্যা সুখের গল্প নিয়ে ‘সোশ্যাল সার্কাস’ ব্যান্ডের গান

প্রকাশিত: ৯:৫২ পূর্বাহ্ণ, ফেব্রুয়ারি ৮, ২০২১

এই শহরের মিথ্যা সুখের গল্প নিয়ে ‘সোশ্যাল সার্কাস’ ব্যান্ডের গান

বিনোদন ডেস্কঃএই শহরের মিথ্যা সুখের গল্প নিয়ে ‘সোশ্যাল সার্কাস’ ব্যান্ডের গান। চারপাশের অনিয়মই যেন একটা নিয়ম। সেখানে বিভিন্ন ঢঙে আর সুরে মানুষ অভিনয় করে। এই অনুভূতিগুলো শহরের ব্যস্ততা, উঁচু সব স্তম্ভ আর যান্ত্রিক জীবনের নিচে পিষ্ট হয়, সত্য আর ন্যায় রূপান্তর হয় নিছক কল্পনায়। এই ভাবনা থেকেই গান বাঁধে দলটি।

রিফাত, সাইদ ও জাহিদ—তিন বন্ধুর এই ব্যান্ড যাত্রা শুরু করে ২০১২ সালে। প্রথম গান মুক্তির পর থেকে বন্ধু ও অনুরাগীদের ভালোবাসা পেতে থাকে দলটি। এরই মধ্যে একে একে তারা প্রকাশ করে একক গান ‘মাটির খাঁচা’, ‘ডাক’, ‘৭১’, ‘বৃষ্টির দিন’, ‘শহুরে রূপকথা।’ দলটির ‘মুঠোফোন’, ‘আজও ভালোবাসি’, ‘ইচ্ছে ছিল’ গানগুলো শ্রোতাদের কাছ থেকে সমাদর কুড়িয়েছে। ইতিমধ্যে অনেকগুলো টিভি শো, রেডিও, লাইভ ও বেশ কয়েকটা অফিশিয়াল মিউজিক ভিডিও করেছে দলটি। গত বছরের ফেব্রুয়ারি মাসে প্রকাশিত হয় দলের প্রথম অ্

ব্যান্ডটির বেশির ভাগ গান লিখেছেন সাইদ ফরহাদ। এই শহরের ভিন্ন ভিন্ন প্রেক্ষাপট নিয়ে সেসব গান। সমাজে বেঁচে থাকার জন্য মানুষ লড়াই করে। কেউ কেউ অন্যায় ও অপরাধে জড়িয়ে মানসিকভাবে বিপর্যস্ত হয়। সেসব অনুভূতি ও সময়ের গল্প নিয়েও গান বাঁধে ব্যান্ডটি। অ্যালবামটিতে রয়েছে রক, সফট ও মেলো—অনেক ধরনের গান। এগুলোর মধ্যে ‘আকস্মিক’, ‘আক্ষেপ’, ‘স্বপ্নফেরি’, ‘অপূর্ণতায়’, ‘ইতিহাস’, ‘শহুরে রূপকথা’, ‘আমিময়’ ও ‘অমীমাংসিত’ শিরোনামের গানগুলোর কিছু কিছু পাওয়া যাবে তাদের নিজস্ব ইউটিউব চ্যানেলে। অ্যালবামটির মিক্সড মাস্টারিং করেছেন ফাংক নুডুলসের এ কে রাতুল। রেকর্ডিংয়ের কাজ করেছেন ইকরাম ওয়াসি ও নয়েজমাইনের সফিক। গানগুলো ইউটিউব, আমাজন, স্পর্টিফাই, ইমাজিন রেডিও, গান, জিপি মিউজিক, রবি এসপ্লাস, বাংলালিংক ভাইবসহ সব দেশি ও বিদেশি ডিজিটাল প্ল্যাটফর্মে রাখা আছে। অ্যালবামটির ডিজিটাল পরিবেশক মি লেবেল। অ্যালবামের ‘অপূর্ণতায়’ ও ‘আকস্মিক’ গান দুটোর সংগীতচিত্রও মুক্তি পেয়েছে। ভিডিওটি তৈরি করেছে সাইবার্ট্রন স্টুডিও। ব্যান্ডটি এখন তাদের নিজস্ব মিউজিক স্টুডিও সার্কাস টেন্টে নতুন অ্যালবামের কাজ করছে।

ব্যান্ড ও মিউজিক নিয়ে ব্যান্ডের ভোকাল ও প্রতিষ্ঠাতা সদস্য আসরার রিফাত বলেন, ‘গান আমাদের শান্তি ও ভালোবাসার জায়গা। সদস্যরা সবাই বন্ধু ও পরিবারের মতো। যখনই সবাই একত্র হই, অস্থিরতা ভুলে যেতে পারি।’

দলের অন্য সদস্যরা মনে করেন, গান তাঁদের স্বাধীনতার জায়গা। আশপাশে যা দেখেন, তা নিয়েই গান করেন তাঁরা। কখনো এই অনুভূতিগুলো শহরের ব্যস্ততা, উঁচু দালান আর যান্ত্রিক জীবনে পিষ্ট হয়, সত্য আর ন্যায় রূপান্তর হয় নিছক কল্পনায়। এই ভাবনা থেকেই ব্যান্ডের প্রথম অ্যালবামের নামকরণ করা হয়েছে ‘শহুরে রূপকথা’।

যালবাম ‘শহুরে রূপকথা।’