কম্বোডিয়ায় নতুন জীবন ‘পৃথিবীর নিঃসঙ্গতম’ হাতির

প্রকাশিত: ৮:২৪ পূর্বাহ্ণ, ডিসেম্বর ১, ২০২০

কম্বোডিয়ায় নতুন জীবন ‘পৃথিবীর নিঃসঙ্গতম’ হাতির

পৃথিবীর নিঃসঙ্গতম’ হিসেবে পরিচিতি পাওয়া পাকিস্তানের চিড়িয়াখানার কাভান নামে সেই হাতিটির দুর্বিসহ জীবন থেকে উদ্ধার করে নিয়ে যাওয়া হয়েছে কম্বোডিয়ায়।

হাতিটির নতুন জীবনকে স্বাগত জানিয়েছেন পপ তারকা শের, যিনি এই হাতিটির মুক্তির জন্য আইনি খরচ বহন করেছেন। খবর বিবিসির।

 

২০১২ সালে সঙ্গীর মৃত্যুর পর থেকে নিঃসঙ্গ জীবনযাপন করছে হাতিটি। প্রায় ৩৫ বছর ধরে নিম্নমানের জরাজীর্ণ একটি চিড়িয়াখানায় বন্দি ছিল কাভান।

কম্বোডিয়ায় হাতিটির ঠাঁই হয়েছে একটি সুরক্ষিত বন্যপ্রাণী অভয়াশ্রমে, যেখানে খোলা আকাশের নিচে আরও হাতির দল আছে।

কম্বোডিয়ার একটি বিমানবন্দরে নেমে শের গণমাধ্যমকে বলেন, আমি অত্যন্ত খুশি ও গর্বিত যে কাভান এখন এখানে। এটি চমৎকার একটি প্রাণী।

প্রাণী কল্যাণ নিয়ে কাজ করা সংস্থা এফপিআইয়ের একজন পশু চিকিৎসক আমির খলিল বলেছেন, পাকিস্তান থেকে যাওয়ার সময় কাভানের আচরণ ছিল শান্ত। তাকে খুব একটা বিপর্যস্ত মনে হচ্ছিল না, বরং সে খেয়েছে এবং বিমান ভ্রমণের সময় কিছুটা ঘুমিয়েছে।

কম্বোডিয়ার উপপরিবেশমন্ত্রী নেথ ফেকাত্রা বলেছেন, কাভানকে স্বাগত জানাতে পেরে তার দেশ অত্যন্ত আনন্দিত। খুব বেশি দিন আর তাকে বিশ্বের সবচেয়ে নিঃসঙ্গতম হাতি হয়ে থাকতে হবে না। আমরা আশা করছি স্থানীয় হাতির মধ্য থেকে সে তার সঙ্গী বেছে নেবে।

ওদিকে অভয়াশ্রমের উদ্দেশ্যে রওনা দেয়ার আগে বৌদ্ধ ভিক্ষুরা কাভানকে কলা ও তরমুজ দেন এবং তারা প্রার্থনা ও পবিত্র পানি ছিটিয়ে তাকে আশীর্বাদ করেন।

মূলত কয়েক বছরের আইনি লড়াইয়ের পর মুক্ত হলো কাভান। আর শেরের সঙ্গে এ লড়াইয়ে সহযোগিতা করেছেন এফপিআইয়ের অধিকারকর্মীরা। শের হলেন বন্যপ্রাণী সুরক্ষার জন্য কাজ করা প্রতিষ্ঠান ফ্রি দা ওয়াইল্ডের সহপ্রতিষ্ঠাতা।

ইসলামাবাদের মারঘাজার চিড়িয়াখানায় দীর্ঘদিন ধরে দর্শনার্থীদের বিনোদন দিয়েছে কাভান।